শিক্ষাক্রম

বিঃদ্রঃ****************************************************

 নমুনা তথ্য।তথ্য সংযুক্ত করা হয়নি। তথ্য সংগ্রহের কাজ চলছে। খুব শীঘ্রই তথ্য সংযুক্ত করা হবে। 

ধন্যবাদ।***************************************************

শিক্ষাক্রম

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)

বাংলাদেশের প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষাক্রম উন্নয়ন ও পরিমার্জন এবং এর আলোকে পাঠ্যপুস্তকসমূহ ও অন্যান্য শিখন-শেখানো সামগ্রী উন্নয়ন ও প্রকাশের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান হলো জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড যা এনসিটিবি নামে বহূল পরিচিত।এটি বাংলাদেশের প্রাক-প্রাথমিক হতে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সকল স্তরের শিক্ষার্থীর পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন, উন্নয়ন এবং মুদ্রণ করে বিনামূল্যে শিক্ষার্থীর হাতে পৌছে দেয়।পুস্তক প্রকাশনার সংখ্যা বিবেচনায় এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রকাশনা সংস্থা। এটি শিক্ষামন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান। এর প্রধান কার্যালয় ৬৯-৭০ মতিঝিল বা/এ, ঢাকা-তে অবস্থিত।

 

এনসিটিবি’র ইতিহাস:

 

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর পাঠ্যবই তৈরির উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে “পূর্ববঙ্গ স্কুল টেকস্টবুক কমিটি” গঠিত হয়। পরবর্তিতে ১৯৫৪ সালে টেকস্ট বুক আইন পাশ হয় এবং সেই আইন অনুযায়ী “স্কুল টেকস্টবুক বোর্ড” নামে একটি স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান গঠিত হয়। পরবর্তীতে ১৯৫৬, ১৯৬১ এবং ১৯৬৩ সালে এই প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্নভাবে পুনর্গঠিত হয়। ১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত “বাংলাদেশ স্কুল টেকস্টবুক বোর্ড” কর্তৃক ১ম থেকে ১০ম শ্রেণির সকল বিষয়ের সকল পাঠ্যপুস্তক নবজাত রাষ্ট্রের প্রয়োজন অনুযায়ী সংশোধন, পরিমার্জন ও পুনর্লিখন কাজ করে। ১৯৭৮ সাল থেকে শিক্ষাক্রমের উপর ভিত্তি করে পাঠপুস্তক প্রণয়নের কাজ শূরু করে। ১৯৮১ সালে শিক্ষাক্রম প্রণয়নের জন্য “জাতীয় শিক্ষাক্রম উন্নয়ন কেন্দ্র (এনসিডিসি)” নামে পৃথক একটি প্রতিষ্ঠান শিক্ষাক্রম উন্নয়নের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়। শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের কাজে সমন্বয় সাধনের জন্য পরবর্তিতে ১৯৮৩ সালে বাংলাদেশ স্কুল টেকস্টবুক বোর্ড এবং জাতীয় শিক্ষাক্রম উন্নয়ন কেন্দ্রকে একীভূত করণের মাধ্যমে “জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড” গঠিত হয়।

 

 

প্রশাসনিক কাঠামো:

 

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) এর প্রধান হলেন চেয়ারম্যান। প্রধান ৪টি উইং হলো- শিক্ষাক্রম, প্রাথমিক শিক্ষাক্রম, পাঠ্যপুস্তক ও অর্থ উইং। প্রতিটি উইং এর প্রধান হলেন একজন সদস্য। এছাড়া প্রতিষ্ঠানের আভ্যন্তরীন প্রশাসনিক কাজে সহায়তার জন্য রয়েছে একজন সচিব।

এনসিটিবি পরিচালিত হয় বোর্ডের মাধ্যমে। চেয়ারম্যান ও ৪ উইং এর ৪জন সদস্যের সমন্বয়ে বোর্ড গঠিত। বোর্ডের সাচিবিক দায়িত্ব পালন করেন বোর্ডের সচিব।

 

National Curriculum and Textbook Board Ordinance,1983 এর অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী বোর্ডের কার্যাবলী :

  1. বিদ্যালয়ের শিক্ষাক্রম ও সিলেবাস নিরীক্ষণ ও সংস্কারের পরামর্শ প্রদান;
  2. বিদ্যালয়ের শিক্ষাক্রম, সিলেবাস এবং পাঠ্যপুস্তকের কার্যকারীতা যাচাই এবং মূল্যায়ন করা;
  3. পাঠ্যপুস্তকের পাণ্ডলিপি প্রণয়নের ব্যবস্থা করা;
  4. পাঠ্যপুস্তকের প্রকাশনা, বিতরণ এবং বিক্রয়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করা;
  5. পাঠ্যপুস্তক, পুরস্কারের জন্য বই, লাইব্রেরির জন্য বই এবং রেফারেন্স বই অনুমোদন করা;
  6. দান ও অনুদান সরবরাহের মধ্য দিয়ে বিজ্ঞান, সাহিত্য ও সংস্কৃত বিষয়ক কর্মকান্ড উৎসাহিত করা;
  7. দরিদ্র ও যাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এমন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে বই বিতরণ;
  8. সরকার কর্তৃক সময়ে সময়ে প্রদত্ত অন্যান্য কার্যাবলী সম্পাদন করা।

 

এনসিটিবি কর্তৃক ২০১৬ শিক্ষাবর্ষে বিতরণকৃত পাঠ্যপুস্তকের বিবরণী:

 

ক্রমিক স্তর পুস্তক সংখ্যা
প্রাক-প্রাথমিক ৬৫,৭৭,১৫৪
প্রাথমিক ১০,৮৭,১৯,৯৯৭
মাধ্যমিক ও এসএসসি ভোকেশনাল ১৬,৫২,৭৬,২০৯
ইবতেদায়ী ১,৯২,৫৫,৬১৫
দাখিল ও দাখিল ভোকেশনাল ৩,৩৯,৩৩,৭৯৭
মোট ৩৩,৩৭,৬২,৭৭২

 

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের চলমান কার্যক্রম:

  • নতুন প্রণীত শিক্ষাক্রম, পাঠ্যপুস্তক ও অন্যান্য শিখন-শেখানো সামগ্রীর যথাযথ ব্যবহার ও গুণগত মানের উপর ট্রাই-আউট/ফিল্ড টেষ্ট/পাইলটিং করা;
  • ট্রাই-আউট/ফিল্ড টেষ্ট/পাইলটিংএর মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্যাদি উপর ভিত্তি করে পাঠ্যপুস্তক ও অন্যান্য শিখন-শেখানো সামগ্রীর পরিমার্জন ও সংস্কার করা;
  • বিভিন্ন প্রকাশনা সংস্থা কর্তৃক প্রণীত ঊচ্চমাধমিক পর্যায়ের পাঠ্যপুস্তক সমূহ মূল্যায়ন ও অনুমোদন করা;
  • প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তক ও অন্যান্য শিখন-শেখানো সামগ্রী মুদ্রণ, বাধাই, পরিবহন ও উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত সরবরাহ করা।

 

© 2018 সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত সাধনপুর হাই স্কুল এন্ড কলেজ Design and Developed by Akram ali